এই পরিষেবা বন্ধ করে দিল SBI: এই ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট থাকলে অবশ্যই পড়ুন

0
168

বর্তমান যুগে আমাদের সবারই একটি করে ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট রয়েছে। সে যেই ব্যাঙ্কেই থাকুক না কেন। আমরা প্রত্যেকেরই প্রায় ব্যাঙ্কের নিয়ম কানুন সম্পর্কে সাধারন ধারনা টুকু রয়েছে।

যে ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট কী, বা তা দিয়ে কীই বা করা হয়? ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট নামটি শুনলেই আমাদের মনে সবার আগে যে ধারনাটি আসে তা হল এটি এমন একটি স্থান যেখানে আমরা আমাদের টাকা পয়সা খুব সিকিওরলি রাখতে পারি, তোলা পারা করতে পারি অথবা টাকা জমাতে পারি। এই ব্যাঙ্ক বিভিন্ন ধরনের হয় প্রত্যেকটি শাখার একটি আলাদা আলাদা নাম বর্তমান। যেমন ইউ. বি. আই., এস. বি. আই. ইত্যাদি।
এদের মধ্যে এস. বি. আই. বা স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া সবচেয়ে অন্যতম ব্যাঙ্ক।

ব্যাঙ্কটি সবচেয়ে শ্রেষ্ঠ একটি কারনেই তা হল তাদের কাস্টমার সার্ভিস। সারা ভারতে তাদের এই বিপুল পরিমান কাস্টমার দের সার্ভিস দেওয়ার জন্য খোলা হয়েছে ছোটো ছোটো অনেক গুলি শাখা। যা ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে আছে।
তবে এই স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া বা ভারতীয় রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্ক যে শুধু মাত্র তাদের কাস্টমার সার্ভিসের জন্য বিখ্যাত তা নয়, তাদের ব্যাঙ্কে কাস্টমার দের যে কার্ডের সুবিধা দেওয়া হয় তার জন্যেও তারা হয়েছে শ্রেষ্ঠ তম ব্যাঙ্ক।

গের পরিবর্তনের সাথ় সাথেই বেড়ে চলেছে এই ব্যাঙ্কের গ্রাহকদের কার্ডের চাহিদা ও জনপ্রীয়তা। এর ফলে একলাফে অনেকটাই বেড়়ে গেছে ব্যাঙ্কটির বানিজ্যিক লভ্যাংশ৷
তথ্য জানাচ্ছে, প্রতিদিন প্রায় ১০,০০০ কার্ড ইস্যু করেছে এসবিআই৷ আর, মাসে প্রায় দুই লক্ষের মত৷ এখনও পর্যন্ত ৬.৮৫ মিলিয়ন কার্ডের যোগান দিয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ব্যাংকটি৷ প্রথমস্থানে রয়েছে এইচডিএফসি ব্যাংক৷ ব্যাঙ্কের তরফ থেকে হরদয়াল প্রসাদ এম. ডি. , সি. ই. ও. জানিয়েছেন যে তারা তাদের এই ব্যাবসা কে অত্যন্ত দ্রুত গতির সাথে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে।

অন্যদিকে কার্ড সংক্রান্ত বিভিন্ন অপরাধ গুলিকে কমানোর দিকেও জোড় দেওয়া হয়েছে। যদিও অপরাধের পরিমান অত্যন্ত নগন্য মাত্র ২ শতাংশ। কার্ডটির জন্য মূলত যুব সম্প্রদায়কেই টার্গেট করা হয়েছে৷’ দিন দিন ক্রেডিট কার্ড ইস্যু করার পরিমাণ বাড়ছে৷ যার কারণ অবশ্য সাধারণ মানুষের চাহিদা৷ ইয়ং জেনারেশনের ইউজাররা কেনা বেচার জন্য শুধুমাত্র কার্ডের ওপরেই ভরসা করেন।

সি. ই. ও. জানিয়েছেন এজন্য প্রধান দায়ী অ্যামাজন মিনত্রা ফ্লিপকার্টের মত অনলাইন কেনা বেচার সাইট গুলি। যেখানে অ্যাকাউন্টে টাকা না থাকলেও এই সব কার্ডের মাধ্যমে পয়ন্দের জিনিষটি কেনা বেচা করা যায়।